কবি মাহমুদা বেগম সিমু এর কবিতা -“ হেমন্তের আগমন ”।

         

সবুজে ঘেরা গ্রাম বাংলায় বিন্দু জলের মেলা,
সূর্য্যালোকে ঘাসের ডগায় শিশির সকালবেলা।
গাছে-গাছে,ডালে-ডালে নানা পাখির কলরব,
মনের আনন্দে খেলা করে পানকৌড়ির দল।

নদীর স্নিগ্ধ পানিতে ঢেউ তুলে আপন মনে,
মনোরম  সুন্দর পরিবেশে হিমেল বাতাস বহে।
ফুল বাগানে ফুটবে কতো যে রঙিন ফুল,
কুহু কুহু ডাকবে কোকিল মন মাতিয়ে খুব।

গগন জুড়ে সাদা মেঘেরা ভেসে ভেসে বেড়ায়,
তারায় তারায় রাতের আকাশকে ভীষণ দারুণ দেখায়।
নদীর দুই তীরে ফুলে ফুলে সেজে থাকে কাশবন,
কাশের বুকে নদীর মতো ঢেউ তুলে বহতা পবন।
 
হেমন্তের স্নিগ্ধ সকালে শিশির পড়ে ঘাসে,
ঝরা শিউলি সুবাস ছড়িয়ে মন মাতিয়ে হাসে।
দোয়েল,কোয়েল,ময়না টিয়ার কলকাকলি সারাবেলা,
নির্মল স্নিগ্ধ হাওয়া আর আকাশে সাদা মেঘের ভেলা।

ফসলের মাঠে প্রকৃতি হাসে মুকুল ধানের শিষে,
কৃষক জাগে নতুন আশাতে আসবেরে ধান ঘরে,
পিঠা খাওয়ার ধুম পরে মা নানীদের মাঝে,
খেজুররের রসের মিষ্টতায় মন জুড়িয়ে আসে।

হেমন্তের নির্মল হাওয়ায় নতুন যৌবনের ডাক আসে।
নতুন দিনের নতুন আশাতে ভালোবাসা নেয় লুটে,
অপরূপ স্নিগ্ধতায় ফুটেছে নানান ফুলের কলি,
গাছে গাছে ফুটেছে ফুল গান গেয়ে যাবে অলি।

খালে বিলে পানি নাই মাছেরা করে হৈ চৈ,
জেলেদের তাই আনন্দের সীমা নাই।
তরুণ কিরণ আনন্দে হাসে প্রণয়ের সুরে, 
মানবকুলে ভালোবাসা জাগে হৃদয়ের পুরে।

কোন মন্তব্য নেই

Featured post

কবি মারুফ হোসাইন এর কবিতা -“ আমার শ্রেষ্ঠ মা বাবা”। ”।

প্রাণের চেয়ে ও প্রিয় তোমরা  আমার অতি আপন জন। তোমাদের না দেখিলে এক নজর  হয়ে যায় ব্যাকুল এই অন্তর। দেখিয়েছ পৃথিবীর আলো আসিলাম অবিনশ্বর পৃথিবীত...

Blogger দ্বারা পরিচালিত.